সুবিধাসমূহ

সুবিধা ১

সফটওয়্যারটি অনলাইন ভিত্তিক, যার ফলে মালিকগন এবং পরিচালকগণ যে কোনো জায়গা থেকেই ব্যবসা পরিচালনা করতে পারবেন খুব সহজে এবং সম্পূর্ণ নির্দ্বিধায় |

সুবিধা ২

সফটওয়্যারটি সম্পূর্ণ সুরক্ষিত | প্রতিষ্ঠানটির ভিন্ন ভিন্ন কর্মচারীদের জন্য সফটওয়্যারটিতে রয়েছে ভিন্ন ভিন্ন প্যানেল, যার ফলে প্রতিটি কর্মচারীর কার্যক্রম অনুযায়ী প্যানেলগুলো প্রদর্শিত হবে | মালিকপক্ষের জন্য রয়েছে ভিন্ন প্যানেল যেখানে মালিকপক্ষই একমাত্র তাদের ব্যবসার লাভ / ক্ষতি দেখতে পাবেন।

সুবিধা ৩

যেহেতু সফটওয়্যারটি অনলাইন ভিত্তিক, সেহেতু আদায়কারীরা ঋণ বা সঞ্চয় যে কোনো জায়গা থেকেই মোবাইল / ট্যাব ব্যবহার করে ডাটা এন্ট্রি করতে পারবেন | সাথে সাথেই পরিচালকগণ যে কোনো স্থান থেকে সরাসরি ঋণ বা সঞ্চয় আদায় রিপোর্ট মোবাইল বা কম্পিউটার ব্যবহার করে খুব সহজে মুহূর্তেই দেখতে পারবেন |

সুবিধা ৪

অগ্রদূত সফটওয়্যারটিতে রয়েছে সয়ংক্রিয়ভাবে দৈনিক বা যে কোনো দিনের ঋণ আদায়ের তালিকা তৈরির সুবিধা | যা ব্যবহার করে ঋণ আদায়কারী কর্মচারীগণ কোনো খাতাপত্র ছাড়া যে কোনো স্থান থেকে নির্ভেজালভাবে খুব দ্রুত ঋণ আদায় করতে পারবেন | আদায় শেষে কর্মচারীগন মোট আদায়কৃত অর্থ সফটওয়্যার এর মোট হিসেবের সাথে মিলিয়ে নিতে পারবেন |

সুবিধা ৫

অগ্রদূত সফটওয়্যারটিতে রয়েছে এক বিশেষ সুবিধা, যার মাধ্যমে ঋণ আদায়কারী কর্মচারীগণ যে কোনো সদস্যকে যে কোনো মুহূর্তে জানাতে পারবেন সেই সদস্যের ঋণ এর সার্বিক অবস্থা | যেমন - সদস্যের ঋণ এর কতগুলো কিস্তি আদায় হয়েছে, কতগুলো কিস্তি বাকি আছে, কতগুলো কিস্তি অগ্রিম দেয়া আছে, কতদিন এর মধ্যে কিস্তি আদায় সম্পন্ন হবে এই সব রিপোর্ট তৎক্ষণাৎ যে কোনো জায়গা থেকেই সদস্যকে আদায়কারী জানাতে পারবেন | তাছাড়া আদায়কারী অফিসার যে কোনো মুহূর্তে সদস্য কবে কখন কার মাধ্যমে কিস্তি বা সঞ্চয় পরিশোধ করেছেন তা অগ্রদূত সফটওয়্যারটি ব্যবহার করে জানাতে সক্ষম হবেন |

সুবিধা ৬

সফটওয়্যারটি ব্যবহার করে ব্যবস্থাপক মুহূর্তেই জানতে পারবেন ব্যবসার কতভাগ অর্থ ঋণ এর উদ্দেশ্যে ছড়ানো আছে, কতভাগ অর্থ আদায় হয়েছে, কতভাগ অর্থ আদায় বাকি আছে এবং কতভাগ অর্থ আদায়ে ব্যর্থ হয়েছে |

সুবিধা ৭

আরো রয়েছে ছুটির দিন তালিকাভুক্ত করার সুবিধা | যার মাধ্যমে অগ্রদূত সফটওয়্যারটি স্বয়ংক্রিয়ভাবে ওই ছুটির দিনটি সকল ঋণ আদায় এর তারিখের সাথে সম্মিলিত করে দিবে |

সুবিধা ৮

সফটওয়্যারটিতে রয়েছে কর্মচারীদের বেতন নথিভুক্ত করার সুবিধা | অগ্রদূত স্বয়ংক্রিয়ভাবে কর্মচারীদের বেতনের রশিদ তৈরী করে দেয় এবং সকল বেতন এর হিসেব প্রতিষ্ঠানের মোট খরচের সাথে যোগ করে দেয় |

সুবিধা ৯

তার সাথে রয়েছে প্রতিষ্ঠানের সকল খরচ এবং ইনকাম তালিকাভুক্ত করার সুবিধা | কি কি খাতে বেশি খরচ হচ্ছে, কোন কোন খাতে কম হচ্ছে এবং কি কি খাতে বেশি ইনকাম হচ্ছে, কোন কোন খাতে কম হচ্ছে - অগ্রদূত পরিচালককে স্বয়ংক্রিয়ভাবে সকল খরচ ও ইনকাম এর রিপোর্ট তৈরী করে দিবে |

সুবিধা ১০

তাছারা আরো রয়েছে নানান গুরুত্বপূর্ণ রিপোর্ট | যেমন - ঋণ আদায় রিপোর্ট, সঞ্চয় আদায় রিপোর্ট, ঋণ অউটস্টান্ডিং রিপোর্ট, ঋণ বিতরণ রিপোর্ট, পাস্ট ম্যাচুরিটি রিপোর্ট |

সুবিধা ১১

সফটওয়্যারটি মালিকগণকে স্বয়ংক্রিয়ভাবে ব্যালান্স শিট, ক্যাশ ব্যালান্স এবং লাভ / লস এর হিসেব করে দিবে |